Actuarial Science কি ?

অনার্স শেষে আমার বন্ধু-বান্ধব সবাই ক্যারিয়ার ভিত্তিক লেখা পড়া শুরু করে দিয়েছে। কেউ বিসিএস, কেউ জি আর ই কেউ ব্যাংকজব সহ অন্যান্য সরকারি-বেসরকারি চাকরির জন্য আদাজ্বল খেয়ে পড়তে বসেছে। অ্যাপ্লাইড ফিজিক্স থেকে
শুরু করে আইটি, ফার্মেসী-মাইক্রোবাইয়োলজি থেকে শুরু করে বোটানি আর পিওর সাইন্সের ম্যাথ-ফিজিক্স-কেমিষ্ট্রি প্রায় সবারই অনার্স শেষে লেখাপড়ার বিষয় একই। হয় বিসিএসের জন্য পড়ো অথবা জি আর ই দাও। বিসিএস না হলেও অন্যান্য চাকরি ঠিকই হবে। ব্যপার টা এমন যে বিগত চার বছর যা পড়েছি তার সবই বৃথা। কেননা বিষয়ভিত্তিক চাকরিকোন কোন ক্ষেত্রে নেই এবং যেগুলোতে আছে তার সংখ্যাও খুব সীমিত।
এমত অবস্থায় আমি সহ আরো কয়েকজন একটু ভিন্ন কিছু পড়ার চেষ্টা করছি। কিন্তু সমস্যা হলো এই ভিন্ন বিষয়টা পরিচিত অপরিচিত বেশিরভাগই (শতকরা ৯৫শতাংশ ) বুঝেন না। আর সেই ব্যাতিক্রম/ ভিন্ন বিষয় হলো Actuarial Science. পরিচিত কারো সাথে দেখা হলে বলে, ” অনার্স তো শেষ, এখন কি করবে বলে ভাবছো? ” যদি উত্তর দেই Actuarial Science পড়ব। তখন বলে এইডা কি? খায় না মাথায় দেয়। (সত্যি সত্যিএরকম একজন বলেছিলো )। এটা কি? পড়ে কি হবে? এর ভবিষ্যৎ কি এধরণের প্রশ্নবানে আমার পরিচিত কেউ যেন জরজরিত না করে এবং অন্যরা যাতে বিষয়টা জানে তার জন্যই এই লেখাঃ

Actuarial Science কি:

actuary-600x400
Actuarial Science হচ্ছে বিজ্ঞানের এমন একটি শাখা যা গণিত এবং পরিসংখ্যান ব্যবহার করে ইনস্যুরেন্স, ফাইনান্স এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও পেশার রিস্ক ম্যানেজমেন্ট অর্থাৎ ঝুকি নির্নয় করে। এক বাক্যে বলতে গেলে ফিনান্সিয়াল রিস্ক ম্যানেজমেন্ট।এটি গণিতের একটি সরাসরি প্রয়োগ অর্থাৎ অ্যাপ্লাইড ম্যাথেমেটিক্স । অনেকে আবার বলেন, Actuarial Science হচ্ছে Probability, mathematics, statistics, economics, Finance, Economical Finance এবং Computer Programming এর সমুন্নিত বিষয়। যারা এই বিষয় পড়েন তাদের কে Actuaries বলা হয়।
কিভাবে কোথায় পড়বেনঃ
বিভিন্ন উন্নত দেশে বড় বড় ইউনিভার্সিটিতে Actuarial Science এর উপর স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি দেওয়া হয়। আমাদের দেশে কোন ইউনিভার্সিটিতে এই বিষয় পড়ানো হয় না, যদিও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে Applied Statistics এ Actuarial Science এর কিছু বিষয় পড়ানো হয়। মোট কথা আমাদের দেশে পুর্নাঙ্গভাবে Actuarial Science পড়ানো হয় না। তবে ২০০৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে Actuarial Society of Bangladesh । কিন্তু এর কার্যক্রম সেভাবে এখন পর্যন্ত এগোয়নি। তবে আশার কথা হচ্ছে আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এবছর চালু হতে যাচ্ছে Applied Mathematics Department। এখানে এই বিষয় পড়ানোর সম্ভাবনা আছে। যেসব দেশে এ বিষয় পড়ার সুযোগ নাই সেসব দেশের শিক্ষার্থীরা ইচ্ছা করলে পড়তে পারে। সেক্ষেত্রে বৃটিশ কাউন্সিলের অধীনে পছন্দের Actuarial Society’তে নিবন্ধন করে পড়তে পারবে। বিখ্যাত কিছু Actuarial Society হচ্ছে
1. Actuarial Society of America
2. Actuarial Society of UK
3. Actuarial Society of Canada
4. Actuarial Society of Australia
5. Actuarial Society of India
নিবন্ধন, ফি জমা দেওয়া, পরীক্ষা, বই কেনা সবই অনলাইনে এবং অনেক ব্যয়বহুল। Actuaries হতে গেলে আপনাকে অনক গুলো কঠিন পরীক্ষার সম্মুখী হতে হবে।
Actuarial Science এর দুটি ডিগ্রি। এক Associate Actuary দুই Fellow Actuary.প্রথম ডিগ্রীর জন্য আপনাকে ৯ টি পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে। ২য় ডিগ্রির জন্যও এরকম কিছু পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে। সব মিলিয়ে ৫-৬ বছর সময় লেগে যাবে। হতাশ হওয়ার কিছু নাই। প্রথম ধাপের তিনটি কোর্স সম্পন্ন করার পরই চাকরি করতে পারবেন। মজার বিষয় হলো বেশিরভাগ মানুষই Associate পর্যন্ত গিয়ে থেমে যায়। কারণ Associate হতে পারলে যে স্যালারি পাওয়া যায় তারপর আর কারো ইচ্ছা থাকে না Fellowship এর জন্য। আমাদের দেশে মাত্র ১ জন Fellow Actuarie আছেন।
পড়ে কি হবে এবং Actuaries’র কাজটা কিঃ
actuary_3
বিশ্বের যত দামি চাকরি আছে তার মধ্যে Actuaries’র স্থান সবার আগে। ২০১০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া সহ উন্নত দেশে চাকরির র‍্যাংকিঙ্গে প্রথম স্থান অধিকার করে আসছে। কেউ যদি Actuaries হতে পারে তার ডিমান্ড সারা বিশ্বে অনেক বেশি। সবচেয়ে বড় বিষয় আর্থিক সচ্ছলতা। Uk তে একজন স্টুডেন্টের বেতন হয় ৫০০০ ডলার ।(http://www.actuaries.org.uk/becoming-actuary/pages/what-can-actuary-earn) এই লিংকে গিয়ে বেতন সম্পর্কে জানতে পারবেন। আমাদের দেশে এত দিবে না। তবে যা দিবে অনার্স মাস্টার্স কমপ্লিট করে ২-১ বছর চাকরি করার পর আপনি যে বেতন পাবেন এখানে শুরুই হবে ঐ বেতন দিয়ে। মোট কথা Actuarial Science its all about money. আপনি যদি চাকরি করে অগাধ টাকা কামাতে চান তবে এই সেক্টরের চেয়ে বেষ্ট আর কোন কিছুই নাই । এখন আসি এর কাজ টা কি। আগেই বলেছি ফিনান্সিয়াল রিস্ক ম্যানেজমেন্ট। এছাড়া এর ট্রেডিশনাল ফিল্ড হচ্ছেঃ

Untitled-31_2
1. Life Insurance
2. Reinsurance
3. Non-Life Insurance
4. Health Insurance
5. Defined benefit superannuation (pensions)
6. Investments/Fund Management
নন-ট্রেডিশনাল ফিল্ড গুলোঃ
1. Banking and Finance
2. Capital Market
3. Enterprise Risk Management
4. Environmental Finance
5. Defined contribution superannuation
6. Wealth management and financial planning
7. Social Security
8. Media effectiveness
9. Health financing
ট্রেডিশনাল প্লাস নন-ট্রেডিশনাল যত গুলো ফিল্ড বললাম তার সব হয়ত আমাদের দেশে ব্যবহার হবে না। আমাদের দেশে Actuarial Science পড়ে Insurance (both life and non-life), ব্যাংকিং, মুদ্রা বাজার শেয়ার বাজার এগুলোতে কাজ করা যাবে। কাজ গুলো হবে এরকম যে, কোন এক কম্পানির কর্মচারীদের পেনশন স্কিম কিরকম হবে এগুলো নির্নয় করা, ইনস্যুরেন্স স্ট্র্যাটেজি কিরকম হবে, ইনস্টলমেন্ট কি রকম হবে, পাবলিক সেন্টিমেন্ট বুঝে ভবিষ্যৎ সম্ভব্য সমস্যার সমাধান বের করা ইত্যাদি। বিভিন্ন মডেল (যেমন ফিক্সড ডিপোজিট স্কিম) তৈরী করা। এই আর কি ।
বি.দ্র. এই বিষয় সম্পর্কে আমি অনেক অল্প জানি। যতটুকু লিখলাম সবই গুগল, উইকিপিডিয়াসহ অন্যান্য ওয়েবসাইট ঘেটে লিখেছি। পড়া এখনো শুরু করিনি। পরবর্তিতে আরো তত্ত্ব ও তথ্য সমৃদ্ধ লেখা পাব্লিশ করবো। কোথাও কোন ভুল তথ্য থাকলে ধরিয়ে দিলে কৃতজ্ঞ থাকবো।

Permanent link to this article: https://www.borgomul.com/rafiq/2919/


মন্তব্য করুন আপনার ফেসবুক প্রোফাইল ব্যবহার করে

10 comments

Skip to comment form

  1. very much informative, thank you very much bro

    1. কষ্ট করে এত বড় লেখা পড়ার জন্য তোমাকেও ধন্যবাদ । 😀

  2. আচ্ছা শুনলাম আমাদের ডিপার্টমেন্ট থেকে কারা কারা (সম্ভবত আপনিও) জানি এই বিষয়ে পড়তে দেশের বাইরে যাচ্ছে। কারা যাচ্ছে তাদের ব্যাপারে একটু কিছু বলতে পারবেন ভাই ?

    1. না দেশের বাইরে আপাতত যেতে হচ্ছে না। তবে সম্ভাবনা আছে। এ বিষয়ে পড়ার জন্য
      ১। মেহেদি ভাই
      ২। হিমেল
      ৩। সাইফুল ( অলিম্পিয়াড বয়)
      ৪। শারমিন হোসেন
      ৫। জনাব মোঃ রকিবুল ইসলাম রফিক অর্থাৎ আমি নিজে
      ৬। ফারহানা আকন্দ প্রমি
      ৭। হুমায়ারা ফেরদৌস
      ৮। শম্পা সাহা

      এই আঁট জন সিলেক্টেড হইছি। ১০০ মার্কের পরীক্ষা নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। উপরে সিরিয়ালও আছে। ভাইভাও হইছে। আরো একটা ভাইভা বাকি আছে। 🙂

      1. all the best for you all

  3. শেষ খবর কী এখন? এ ধরনের অ্যাপ্লাইড বিষয়গুলোর আরও বেশি প্রচারণা চালানো উচিত। আর Traditional পথের বাইরে হাঁটার একটা মজা যেমন আছে তেমনি কষ্টও আছে। Social Harassment এর সামনে পরার সম্ভাবনা থাকে।

    অগ্রিম অভিনন্দন রইল।

  4. শেষ খবর হলো আমরা সর্বসাকল্যে ৬ জন এই স্কলারশিপ পেয়েছি। সবাই আমাদের ইয়ারের। বইপত্র-ক্যালকুলেটর কেনার জন্য আপাতত ফান্ডিং করেছে। দেখা যাক কি হয় ভবিষ্যতে। @ রেজা ভাই
    🙂

  5. কোন ছয়জন পেয়েছেন?

  6. ১। আমি নিজে
    ২। মুনতাসির আলম হিমেল
    ৩। ফারহানা আকন্দ প্রমি
    ৪। হুমায়ারা ফেরদৌস
    ৫। শারমিন হোসেন
    ৬। শম্পা সাহা

    @ জুনায়েদ নিবিড়

  7. Clear Conception pelam ekta.thanks vaia… etto sundor ekta lekhar jonno

মন্তব্য করুন

Discover more from বর্গমূল | Borgomul

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading