ম্যাথকন ‘১৪ Behind the scene

দীর্ঘ একটি ছুটির পর কিছুদিনের মাঝেই আবার ক্লাস শুরু হতে যাচ্ছে। প্রথম বর্ষের পরীক্ষা শুরু হতে আর বেশী সময় বাকি নেই, দ্বিতীয় বর্ষের পরিক্ষাপুর্ব প্রস্তুতি চলছে। সকলের প্রতি শুভকামনা রইল।
বন্ধের ঠিক আগে আগে, আমরা সকলে মিলে একটি গনিত প্রতিযোগিতার আয়োজন “ ম্যাথকন ‘১৪ “ করতে পেরেছিলাম। আয়োজনটি কতটুকু সফল হয়েছে তা সবচেয়ে সঠিকভাবে বলতে পারবে প্রতিযোগীরা, সর্বোপরি সকলেই। কিন্তু এই আয়োজন এর পিছনে বেশ অনেকের অসামান্য অবদান আছে, যাদের কথা না বললেই নয়। ম্যাথকন ‘১৪ সফলভাবে অনুষ্ঠিত হবার পেছনে যাদের অবদান অসামান্য, তাদের কথা বলার জন্যই মুলত এই লিখা।
ম্যাথকন ‘১৪ Behind the scene

 

প্রথমেই বলতে হয় ফান্ড এর কথা। অনুষ্ঠান এর যাবতীয় পরিকল্পনা দাড়িয়ে যাবার পর, প্রথম যেই কাজটা দিয়ে শুরু করতে হয়েছিল তা হল ফান্ড রেইসিং। ফান্ড রেইজিং এর কাজ সামলিয়েছে ফাহিম। গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ফান্ড রেইজিং এ সাহায্য করেছে আরিফিন, নয়ন, ধ্রুব। ওদের ছাড়া এত অল্প সময়ে ফান্ড রেইজ অসম্ভব ছিল।

 

যাদের financial contribution এ সেদিনের ম্যাথকন হয়েছিল – চন্দ্রশেখর, ফাহিম, আরিফিন, ইমরান, নয়ন, জয়, রফিক, রবিন, দোলন, মুন্না, অটল, অনন, তারেক, নিয়াজ, আমি, রেজা ভাই, গালিব ভাই, জুলফিকার ভাই, মনসুর ভাই, মিযান ভাই, আজম ভাই, আতিক ভাই, আসাদ স্যার। বিশেষভাবে বলতেই হয়, অনন, আতিক ভাই, মন্সুর ভাই, মিযান ভাই, আজম ভাই এর কথা।

 

পোস্টার, ব্যানার ডিজাইন ও লেখালেখির কাজগুলো কখনই সম্ভব ছিলনা অবন্তি, দিপু, নয়ন, চন্দ্রের রাত জাগা পরিশ্রম ছাড়া। ডিজাইনিং এর ব্যপারটা co-ordinate করেছিল চন্দ্র। প্রধান ব্যানারটি ডিজাইন করেছিল নয়ন, প্রিন্টেড পোস্টারগুল ডিজাইন করেছিল দিপু, বাকি পোস্টারগুলো নিজ হাতে বানিয়েছিল অবন্তি। গ্রুপ ইনফোটা আমাকে লিখে দিয়েছিল দিপু :)। সার্টিফিকেট, ইনভিটেশন কার্ড, ক্রেস্ট ডিজাইন, বিভিন্ন লেখালেখির কাজগুলো করেছিল চন্দ্র..

 

সম্ভবত সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং কাজ ছিল রেজিস্ট্রেশন।

১ম ও ২য় বর্ষে রেজিস্ট্রেশন এর কাজ সবুজ, ধ্রুব, নাফিসা, নিবির, ফারহিন, সাদি, রিয়েল ছাড়া সম্ভব ছিলনা। ম্যাথকন এর অন্যতম আকর্ষণ ছিল number of participants ! রেজিস্ট্রেশান এর কাজটি খুব অল্প সময়ে ওরা সফল ভাবে করেছে। ৩য় বর্ষের রেজিস্ট্রেশান এবং বিভিন্ন ব্যপারে সাহায্য করেছে ইব্রাহিম এবং সাবিহা।

 

ইভেন্ট এর দিনে, রফিক আর বৃষ্টির কথা না বললেও চলে 😛 !
exam room এ তোমরা সবাই দেখেছ !  ইভেন্ট ভেন্যুতে বিভিন্ন ব্যপারে সাহায্য করেছে ফাহিম, চন্দ্র, জুনায়েদ, লিংকন, আরিফিন, ইমরান, অটল, নয়ন, সজল, রাজ, সোহান, হান্নান ( এবং অবশ্যই আরও অনেকে )।

 

খাবার ও পানির পুরা ব্যাপারটা execute করেছে আরিফিন! সে নিজে এবং তার সাথে অক্লান্ত পরিশ্রম করেছে নয়ন, সজল, ইমরান। ওহ! খাবার রান্না হয়েছিল একুশে হল ক্যান্টিন এ! সবাই খেয়াল করেছে কিনা জানিনা, অনুষ্ঠান এর শেষে যেখানে সেখানে পরে থাকা খাবার প্যাকেট গুলো কুড়িয়ে ডাস্টবিন এ আনছিল আরিফিন, নয়ন, সজল এবং তাদেরকে দেখে হাত লাগিয়েছিল কিছু ১ম , ২য় বর্ষের কিছু ছাত্র।

 

এরপর জাজ ও প্রবলেম সেটার! প্রশ্ন করেছিলাম আমি, অনন ও অটল। প্রশ্ন নিয়ে ও ইভেন্ট এর দিনে আমাকে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করেছে অটল। ম্যাথকন ’১৪ এ জাজিং ছিল খুব এ কঠিন একটা কাজ। ইভেন্টের মজার সময়গুলো গুলো মিস করে এই কাজটি করেছে হিমেল, রুপা, রনি, মিনহাজ, সজল চক্রবর্তী, রবিন,  অটল। রাজ মারকিং করেছিল একটি প্রবলেম এর। খাতা দেখায় ব্যস্ত খাকায় শেষ সময়ে আমি খুব এ ভীত ছিলাম ফিনিশিং নিয়ে :-/ !এই কাজগুলো একদম নিজে থেকে করেছে মুন্না, দোলন, হিমেল, রুপা, মিনহাজ, রবিন ( কারও নাম বাদ গেলে আমি খুবই দুঃখিত 🙁 , শেষ দিকে আমার অনেক কিছু খেয়াল নাই )

 

সার্বিক বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু মতামত এর জন্য বিশেষভাবে ধন্যবাদ দিতে চাই অনন, রেজা ভাই, রফিক, রবিন, আরিফিন কে।

 

এবং অবশ্যই আমাদের সম্মানিত শিক্ষকদের কথা না বললেই নয়। ম্যাথকন এর আগে ও পরে, আমাদের সম্মানিত শিক্ষকদের প্রেরনা এবং অংশগ্রহণ ছিল স্বতঃস্ফূর্ত ! অমূল্য স্যার, তৌহিদ স্যার, চন্দ্রনাথ স্যার এর participation ছিল খুবই encouraging.ইভেন্ট রিলেটেড যেকোনো permission এর ব্যাপার এ খুবই supportive ছিলেন অমূল্য স্যার, বাবুল স্যার। আমি বিশেষভাবে মনে রাখব বাবুল স্যার কে। এবং আমি নিশ্চিত, সবাই রাজিব স্যার কে খুব মিস করেছে!

Mehdi Rahman
Author: Mehdi Rahman

Permanent link to this article: https://www.borgomul.com/sst/2916/


মন্তব্য করুন আপনার ফেসবুক প্রোফাইল ব্যবহার করে

2 comments

  1. ভাল্লাগছে বিষয়ডা। এরকম আবারো চাই।

  2. আগামী বছর আরও বড় করে অনুষ্ঠান হবে ইনশাল্লাহ

মন্তব্য করুন

Discover more from বর্গমূল | Borgomul

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading